শেষবেলা

                 পাহাড়ের আড়ালে চলে যাচ্ছে সুর্যটা
                 মা উল বুনছে আলো আঁধারিতে
                 জীবনের শেষপ্রান্তে
                 ঘুম পাড়ানী গাণ ভেসে আসছে
                 শেষরাতের চিমনি থেকে
                 পুত্রবধু দোলনায় নাচছে
                 ছেলেটা হয়ত ডাকাত
                 নয়ত নায়ক।
                 _____________  আহমদ মুহিব দিরানা

Advertisements

মৃতের পদাবলী

                 ওদের দেখলে আমার হাসি পায়
                 যখন ওরা কবরে ফুল নিয়ে আসে
                 ওরা অজ্ঞ ওরা কিছু শুনতে পায়না
                 ওরা মনে করে এ পাথরে
                 আমার সম্পর্ক আছে
                 ওরা জানেনা
                 আমি ওই ফুলের মাঝেই আছি
                 আমি ওদের মাঝেই আছি।
                      ____________  সাঈদ সিদকী তারান্চী

কুমারী হরিণীর শোঁকগাথা

                 হে চপলা কুমারী হরিণী
                 জলের গভীরে
                 তোমার চেহারায়
                 কি দেখছো বেদনার্ত নয়নে
                 যাকে ঘিরে রয়েছে
                 এই বনভুমি।

                 মুক্তোঝরা দাঁতে তোমার
                 ঝিলিক খেলা করে
                 সরু চরনে নেচে নেচে চলো
                 আর কতদূর যাবে তুমি
                 এই নেকড়ের দেশে
                 তোমার চারিদিকে হায়েনার হাসি।

                 হে চপলা হরিণী
                 তোমার বন্ধুরা বড়ই দূর্বল
                 শত্রুরা কঠোর কঠিন
                 ফলবান বৃক্ষের হুতাশ
                 উইলোর ক্রন্দন
                 কি কাজে লাগবে তোমার।

                 তুমিতো স্বজন বিহীন প্রান্তরে
                 এখানে বিচার নেই
                 দয়ামায়া নেই
                 এখানে ঈশ্বর মৃত আজ।

                 নেফতি কুমালি

মুসাফির

                নির্বাসন কত নির্জন কত অন্ধকার
                 কত বিস্বাদ অপেক্ষার সময়
                 হে চালক আর কতকাল
                 এই পথে থাকবো
                 কে বলতে পারে আর কতকাল চলবো।

                 ছুটাও তোমার ঘোড়া
                 একটু দ্রুত ছুটাও
                 সীমাহীন বেদনায় সোয়ারি
                 এই পথও ক্লান্ত
                 প্রিয়ার অপেক্ষারও শেষ নেই।

                 দূরের গ্রাম যখন
                 ভোরের সূর্যে নাইবে
                 লাল কয়লা ধুসর হবে
                 পথ ও অশ্রু শেষ হবে
                 তখনও কি মুসাফির রবো।

                 ফারুক নাফিজ

একটি সন্ধ্যা

                 একটি সন্ধ্যা একটি গোলটেবিল
                 চারজন মানুষ চারটি বোতল
                 চারটি পানপাত্র কোন কথা নেই॥

                 পানপাত্র ভরা পানপাত্র খালি
                 একটি মানুষ কথা বলে
                 একটি বোতল খালি।

                 চারটি বোতল খালি
                 চারটি মানুষ কথা বলে
                 টেবিলটা ঘুমায়।

                 সন্ধ্যা এখন রাত
                 চারটি বোতল ঘুমায়
                 পানপাত্র কাঁদে।

                নাজিম হিকমত

তিনটি কবিতা

                     আমরা সাদাজামা শ্রমিক
                     ন’টা বারোটা পাঁচটা
                     রাজপথে কাঁধে কাঁধ ঘসি
                     ঈশ্বর আমাদের ভগ্য লিখে দিয়েছেন
                     আমরা সারা জীবন অপেক্ষা করি
                     বিকেল পাঁচটা
                     আর মাসের পহেলা তারিখ।

                     ওয়ালী কানিক

                    আনন্দ

                     মাঝরাতে আলো জ্বলে উঠলো
                     টিলার ওপর বাড়ীটায়
                     এখন তারা কি করছে
                     কথা বলছে না গান শুনছে
                     হয়ত,হয়ত বা না।
                     যদি কথা বলে, কি বলছে?
                     যুদ্ধ না ট্যাক্স
                     হয়ত তারা কিছুই করছেনা
                     শিশুরা ঘুমিয়ে পড়েছে
                     বাবা কাগজ পড়ছে
                     মা উল বুনছে
                     হয়ত তারা ওসব কিছুই করছেনা
                     কে জানে।

                     আসলে ওসব লেখা যায়না
                     বলাও যায়না
                     মা বাবা যা করছে।

                     ওয়ালী কানিক

                    আলো

                     রাত্রি প্রসব করে
                     আমি পেয়েছি দিন
                     দিনের ভিতর পেয়েছি আলো।
                     আলোর ভিতর পেয়েছি বৃক্ষ
                     বৃক্ষের ভিতর আলো
                     শুধু আলো
                     আরও আলো।
                                 ____ মুরাদ নিশাত নওজাদ

পালানো

                     সুন্দরের শত্রু হয়ে গেছি
                     হারিয়েছি বিশ্বাস ঈশ্বরে
                     যেদিন ওরা তোমায় কুত্সিত বলেছে।
                     তুমি স্বর্ণমুদ্রায় হারজিত খেলো
                     লোভাতুর হাত বাড়িয়ে
                     আর আমি পূণ্যকে ঘৃণা করি।
                     তোমায় কুত্সিত বলিনি আমি
                     ধর্মের বাহানায় তোমায় অবিশ্বাসী বলিনি
                     তোমার অভিশাপ কল্যাণ হয়ে আসে।
                     তুমিতো কখনই অতিথি ছিলেনা
                     তুমি ছিলে হৃদয়ের বিছানায়
                     তবুও কেমন করে ভাবো
                     আমি পলাতক।
                     তেমার ঈশ্বরের রশির মতো
                     যেমন শক্ত ধনুকের তার
                     তেমনি বাধা আছে
                     আমার হৃদয় তোমাতে।

                     তুমি যদি দেবী হয়ে
                     পাহাড়ে পাহাড়ে ঘোরো
                     আমি দানব হয়ে
                     তোমারই পথেই থাকবো।

                     ফারুক নেওয়াজ

  • দিনপন্জী

    • ডিসেম্বর 2017
      সোম বুধ বৃহ. শু. শনি রবি
      « নভে.    
       123
      45678910
      11121314151617
      18192021222324
      25262728293031
  • খোঁজ করুন