চলে যেও, আমি চলে যাবার পর

চলে যেও আমি চলে যাবার পর / এরশাদ মজুমদার

তোমরা যার যেমন ইচ্ছা চলে যেও
আমি চলে যাবার পর
আমিতো যাবোই
যাবার সময় হয়ে গেছে
এই হয়ত এখুনি
না হয় একটু পরে
হয়ত সকালে খুব ভোরে
হয়ত সন্ধ্যার পর
গভীর রাতেও হতে পারে।
লাইফ সাপোর্ট দিয়ে রাখার
কোন মানে হয়না
ক’দিন রাখবে।
সুর্য ডুবে গেলে অন্ধকার নেমে আসবে
তোমরা ঘুমোতে যাবে
আবার সকাল হলে
হাসপাতালে আসতে হবে
পাশে বসে থাকতে হবে
আত্মীয় স্বজন আসবে
উঁকি মেরে দেখবে
কিছুক্ষণ অপেক্ষা করবে
দোয়া করতে বলবে
বলো, ‘হে আল্লাহ আমার বাবাকে
আর কষ্ট দিওনা
তোমার বান্দাহকে তুমি তুলে নাও’।
জীবন মৃত্যুর মাঝে ঝুলে থাকা মানুষ
সবাইকে খুব বেশী কষ্ট দেয়
যাদের টাকা আছে
তারা এয়ার এম্বুলেন্স আনবে
বিদেশে নেয়ার জন্যে
বিদেশ মরলে ধনীদের
কিছুটা হলেও সম্মান রক্ষা হয়।
তোমরা কখনও এমন কাজ করোনা
তোমাদের ধন সম্পদ খুইয়ে
এমন মুসাফিরকে বাঁচিয়ে কি লাভ?
যেতে যখন হবে
চলে যাওয়াটাই ভালো
যেতে যখন হবে
তোমাদের কষ্ট দিয়ে কি লাভ
অনেকতো বেঁচেছি
বেশী বাঁচাতে আর কি লাভ
প্রকৃতির নিয়ম
গাছ বুড়ো হলে মরে যাবে
নদীও মরা হয়ে যেতে পারে
পাহাড়টাও উধাও হতে পারে
কোন কিছুইতো কোথাও
কারো হাতে নেই
সে যতই শক্তিশালী হোক
ওই কবরে গিয়ে শক্তিশালীদের
একবার দেখে আসো
একদিন মাটির সাথে মিশে যেতে হবে
তুমি রাজা বাদশাহ ফকির হও
শিশু কিশোর যুবক যু্বতী
মাতা পিতা ভাই বোন
যাই হওনা কেন
তোমাকে যেতেই হবে
কিছুতেই এ যাওয়া বন্ধ হবেনা।
তাই আমি চলে যাই
তোমরা কেউ কেঁদোনা
চোখের পানি ফেলোনা
আমাকে নীরবে যেতে দাও
একদিন সবাই যাবে
শুধু অনুরোধ
আমি চলে যাওয়ার পর চলে যেও
এটাই আমার শেষ আবদার।

ঠিকানা হারানো পথিক

ঠিকানা হারাণো পথিক / এরশাদ মজুমদার

কোথায় ঘুরছো বন্ধু
বেঠিকানা বেঘর বেমোকাম
কেন ঘুছো বন্ধু
খুঁজছো কাকে
কিসের এমন নেশা তোমার
আমিতো তোমার সাথে মিলতেই চাই
আমিতো তোমার আসে পাশেই থাকি
তবুও তুমি এমন বেচাইন কেন
জগত চক্ষু রেখে দিয়ে
অন্তরচক্ষু মেলে ধরো
যে চোখ আমায় দেখতে পায়না
সে চোখে আর কতকাল খুঁজবে
আমিতো তোমায় পলক পলক দেখি
তোমার প্রতিটি নিশ্বাস
বুকের প্রতিটি কম্পন বিঝতে পারি
তুমি কি এখনও বুঝতে পারোনা
তুমি আমার কি হও
এইতো সেদিন গেলে মাটির ঘরে
আলোর ঘর ছেড়ে
কেমন করে হারিয়ে গেল তোমার
আদি ঠিকানা
কোথায় গেলো তোমার নুরের চোখ ও অন্তর
কিসের ছায়া তোমার চোখ ও অন্তরে
দুনিয়া কি তোমাকে পাগল করেছে
তুমি কি ফিরে আসার কথা ভুলে গেছো
কি করে তুমি বেঘর হলে
বেমোকাম বেঠিকানা হলে
তোমার এ হালত দেখে
আমারও আফসোস
সহি ঠিকানায় ফিরে আসো
যেখানে আছো সেখানেই থাকো
তুমি আমার নজরের সীমানায় আছো
দেহের কথা ভুলে গিয়ে
রুহের কথা ভাবো
রুহের অপার সাগরে ডুব দাও
দেখবে আমি কোথায় আছি
আর তুমি কোথায়।

বিচ্ছেদ

আর কত বেদনা বন্ধু / এরশাদ মজুমদার

বেদনায় ভরা দিনরাত্রি আমার
আর ফুরায়না
দিন যায়
রাত যায়
দু:খ বেদনা কষ্ট টেনে নেয়
তার অন্ধকার অতলে।
হে প্রিয়তম বন্ধু
হে প্রেয়সী আমার
হে প্রাণ প্রিয়
হে জীবনে মালিক ও স্রষ্টা
এ সময় আর কতকাল বয়ে যাবে
আমার এমন কষ্টে তুমি কি
ভাল থাকতে পারো
আমার এ হালত বন্ধু
তুমিইতো সৃষ্টি করেছো
প্রেমের এমতেহান দেবার ও নেবার জন্যে।
কিন্তু কেন?
আমিতো কোন ফারাক দেখিনা বন্ধু
তোমার আমার মাঝে
তুমিইতো আমায় আলাগ করেছো
তোমার নিজেকে দেখার নেশায়
আর তোমার নেশায়
তোমার বিচ্ছেদের বেদনায়
আজ আমি ক্লান্ত শ্রান্ত
তুমিই বলো দুই দিনের এ জগত সংসারে
আমার কে আছে
দুই দিনের এ সম্পর্ক
দুই দিনের এ আত্মীয়তা
দুই দিনের এ মোহ
দুই দিনের এ ভালবাসা
এখনই হয়ত শেষ হয়ে যাবে।
বলো বন্ধু এ কেমন খেলা
নিজেকে বিচ্ছিন্ন করে কি আনন্দ তোমার
আমিতো আর সইতে পারিনা
এমন বিচ্ছেদের ষন্ত্রণা
দম বের হয় হয় হয়না
আর তুমি কেমন করে
আমার এ কষ্ট দেখে
কি এক অজানা নেশায় বুঁদ হয়ে থাকো
এখানে এ বেগানা সংসারে
কেউ আমার নয়
আমি কারো নই
তবুও কেন পরবাস বন্ধু তুমি বিহনে
আর নয় প্রিয়তম
আর নয়
এবার আমার হাসিমুখে গ্রহণ করো
দুহাতে আদর করে তুলে নাও
তোমার আমাকে
নুরের জগতের বুলন্দ দরওয়াজা
খুলে ধরো
ফেরেশতা কুল হাত তালি দিক
তোমার প্রেমিকের প্রত্যাগমন দেখে
তোমার আরশিল আজিম
আরশে মুয়াল্লায় নহবত বেজে উঠুক।

সাদা মাইক্রোবাস

সাদা মাইক্রোবাস / এরশাদ মজুমদার

সাদা মাইক্রো,মনে হয় কাফনের কাপড় পরে
ঘুরছে শহরে বন্দরে
খাস রাজধানীর কোতোয়ালের নাকের ডগায়
বাহাত্তুর পঁচাত্তুরে একটি সাদা টয়োটা বিকেল হলেই
নামতো সদর রাস্তায়
তখনি নগরবাসী বুুঝতো
কোন এক মায়ের বুক খালি হবে আজ রাতে
পরদিন কোথাও পড়ে থাকবে অজ্ঞাত যুবকের লাশ
তারপর এ বদ্বীপে কত কিছুই না ঘটলো
সোনার বাংলায় দুর্ভিক্ষ আসে
লাখে লাখে মরে মানুষ
যারা স্বাধীনতা এনেছিল।
সীমান্তের কাঁটাতারে ঝুলে থাকে ফেলাণীর লাশ
প্রতিদিন খুন হয় বাংলার চাষী কামার কুমার
বন্ধুর অবিরাম বন্ধুত্বের ফসল
মৌসুমের ধান কেটে নেয়
হালের বলদ লুটে নেয় সীমান্তের ওপার
এসবই আজ ভাগ্য সোনার বাংলার।
আর ভিতরে সাদা মাইক্রোর নীরব অভিযান
এমন সময় তুমি আমি আপনি হুজুর
নাই হয়ে যেতে পারেন
দেশপ্রেমিক সাদা মাইক্রো
সাদা কাফনের অন্ধকার গহ্বরে।
আপনি ষোল কোটি বা বত্রিশ কোটি
যাহাই হন না কেন
নিরাপদ জীবনের কোন গ্যারান্টি এ সময়ে নাই
আমাদের প্রাণের এই সোনার বাংলায়
যতই বলুন আমি মুক্তিযোদ্ধা
শহীদ মাতা বা ভগিনী
ভাই বা বেরাদর
আপনার কোন কান্নাই শুনবেনা ওই মাইক্রো
ও শুধু জানে কেমন করে তুলে নিতে হয়
যে হাত আপনার টুটি চেপে ধরে
সে হাত ও জানেনা
কেন ধরতে হয় কি কারণে
চারিদিকে শুধু রাজার হুকুম
রাজ্য বাঁচাতে হবে
গণতন্ত্র বাঁচাতে হবে
মানবতাকে বাঁচাতে হবে
তাই কিছু লোককে আজ খুন হতে হবে
গুম হতে হবে, নিখোঁজ হতে হবে
কিছু সন্তানকে এতিম হতে হবে
কিছু মাকে সন্তানহারা হতে হবে
কিছু বোন স্বামীহারা হবে
পিতা পুত্রশোকে মরবে
বোনের ইজ্জত লুণ্ঠিত হবে
দেশের ইজ্জতের জন্যে
পতাকার ইজ্জতের জন্যে
সার্বভৌমত্বের জন্যে
স্বাধীনতার জন্যে
এইটুকু ত্যাগ আপনাদের করতেই হবে
হে দেশবাসী মা বোনেরা
আসুন সবাই কোরাস কণ্ঠে গাই
‘আমার সোনার বাংলা আমি তোমায় ভালবাসি’।

স্বাধীনতা

স্বাধীনতা / এরশাদ মজুমদার

বুঝলি ছমিরুদ্দি জুলেখা তোরা স্বাধীনতা এনেছিস
খুব মহত্‍ কাজ করেছিস
এমন কাজ ক’জন করতে পারে এক জীবনে
তোরা অমর হও
শহীদ হলে আরও ভালো হতো
শহীদ ছমিরুদ্দি শহীদ মিনার হতো

আমরা কালো পোষাক পরে মিনারে যেতাম

ছবিতে ফুলের মালা দিতাম
সে সুযোগতো তুই দিলিনা
বড় আফসোস আমাদের
তুইতো জানিসনা রাজনীতিতে মরা মানুষের দাম বেশী।
হুজুর, বেঁচে থেকেও আমরা আধমরা
দু’বেলা খেতে পাইনা
অসুখের চিকিত্‍সা পাইনা
বাপটাকে পাকিস্তানীরা গুলি করে মেরেছে
তাও সে শহীদ হতে পারেনি
আমি জানি, সবই জানি
যারা যুদ্ধ করে শহীদ হয় তারা সবাই সৈনিক
আর যারা যুদ্ধ করেনা তারা সেনাপতি
তোরাতো জানিস না সেনাপতিদের বেঁচে থাকতে হয়
সৈনিকদের মরতে হয় স্বাধীনতার জন্যে
স্বাধীনতা আনাটা বড়ই ছোয়াবের কাজ
আখেরাতে ফল পাবি, খোদাই দেবেন
আমরা স্বাধীনতা খাবো
তোরাতো কখনই কিছু খেতে পারিসনি
এখন খেতে পেলেও খেতে পারবিনা
বদ হজম হবে
এটাই নিয়ম।
হুজুর, ভাতাটাওতো পাইনা
না পাবিনা
ওটাতো পাবে আমাদের কর্মীরা
যারা মিছিল করে, বাসে আগুন দেয়
বোমা মারে
প্রয়োজনে কামান বন্দুক চালাতে পারে
তুইতো এসবের কিছুই করতে পারিসনা।
হুজুর, আমার মেয়েটাকে তুলে নিয়ে গেল কর্মীরা
কিছুই বললেন না আপনি
কেমন করে বলবো ছমিরুদ্দি
ওরা যে জননেত্রীর কর্মী
ওরা গণতন্ত্রের জন্যে অনায়াসে জীবন দেয়
খুন করে গুম করে
নদীতে লাশ ভাসায়
ওরা আছে বলেই গণতন্ত্র আছে
সরকার আছে , রাস্ট্র আছে
তোরা থাকলেই বা কি
না থাকলেই বা কি
তোরা শুধু অংক, লাখ লাখ কোটি কোটি
তোরা শুধু গাইবি
‘আমার সোনার বাংলা আমি তোমায় ভালবাসি’

স্বাধীনতা

স্বাধীনতা / এরশাদ মজুমদার

বুঝলি ছমিরুদ্দি জুলেখা তোরা স্বাধীনতা এনেছিস
খুব মহত্‍ কাজ করেছিস
এমন কাজ ক’জন করতে পারে এক জীবনে
তোরা অমর হও
শহীদ হলে আরও ভালো হতো
শহীদ ছমিরুদ্দি শহীদ মিনার হতো

আমরা কালো পোষাক পরে মিনারে যেতাম

ছবিতে ফুলের মালা দিতাম
সে সুযোগতো তুই দিলিনা
বড় আফসোস আমাদের
তুইতো জানোনা রাজনীতিতে মরা মানুষের দাম বেশী।
হুজুর, বেঁচে থেকেও আধমরা
দু’বেলা খেতে পাইনা
অসুখের চিকিত্‍সা পাইনা
বাপটাকে পাকিস্তানীরা গুলি করে মেরেছে
তাও সে শহীদ হতে পারেনি
আমি জানি, সবই জানি
যারা যুদ্ধ করে শহীদ হয় তারা সবাই সৈনিক
আর যারা যুদ্ধ করেনা তারা সেনাপতি
তোরাতো জানিস না সেনাপতিদের বেঁচে থাকতে হয়
সৈনিকদের মরতে হয় স্বাধীনতার জন্যে
স্বাধীনতা আনাটা বড়ই ছোয়াবের কাজ
আখেরাতে ফল পাবি, খোদাই দেবেন
আমরা স্বাধীনতা খাবো
তোরাতো কখনই কিছু খেতে পারিসনি
এখন খেতে পেলেও খেতে পারবিনা
বদ হজম হবে
এটাই নিয়ম।
হুজুর, ভাতাটাওতো পাইনা
না পাবিনা
ওটাতো পাবে আমাদের কর্মীরা
যারা মিছিল করে, বাসে আগুন দেয়
বোমা মারে
প্রয়োজনে কামান বন্দুক চালাতে পারে
তুইতো এসবের কিছুই করতে পারিসনা।
হুজুর, আমার মেয়েটাকে তুলে নিয়ে গেল কর্মীরা
কিছুই বললেন না আপনি
কেমন করে বলবো ছমিরুদ্দি
ওরা যে জননেত্রীর কর্মী
ওরা গণতন্ত্রের জন্যে অনায়াসে জীবন দেয়
খুন করে গুম করে
নদীতে লাশ ভাসায়
ওরা আছে বলেই গণতন্ত্র আছে
সরকার আছে , রাস্ট্র আছে
তোরা থাকলেই বা কি
না থাকলেই বা কি
তোরা শুধু অংক, লাখ লাখ কোটি কোটি
তোরা শুধু গাইবি
‘আমার সোনার বাংলা আমি তোমায় ভালবাসি’

আমার সোনার বাংলা আমি তোমায় ভালবাসি

‘আমার সোনার বাংলা আমি তোমায় ভালবাসি’ / এরশাদ মজুমদার

এমন কি অসুবিধা যদি দিনে রাতে
দশটা খুন আর দশটা গুম হয়
এতে এমন কি মহাভারত অশুদ্ধ হলো
দেশসুদ্দো লোক আকাশটাকে মাটিতে নামিয়ে
হাতের মুঠোয় লয়।
আরে ভাই সরকার ঠিক আছে
কারবার ঠিক আছে
চিত্‍কার করার কি আছে যদি ১৬কোটিতে
হাতোগোনা কিছু লোক খুন হয় গুম হয়
এমন হয়
এমন হয়
যদি থাকে দেশ রাস্ট্র আর পালের গোদা সরকার
না থাকলে শুধু স্বাধীনতা কি চিবিয়ে খেতে দিনে দশবার।
তাই বলি মরা লাশ খুন গুম নিয়ে খামাখা
আর কত দিন আর কত রাত নষ্ট করবে ভাই
দয়া করে এবার নিজ কাজে দাও মন সবাই
কি বললে?
কাজ নেই
ছি: ছি: কি যে বলো মরে সরকার লাজে
অমন কথা বলোনা ভাই
রাস্ট্র আমাদের খাবে না কি তাই
আমরা সরকার
দিনে রাতে মাসে বছরে তেমন কি আর খাই।
গুম খুন নিয়ে দয়া করে হারাম করোনা
নিজের ঘুম
পড়বে কাজের ধুম
আসো আসো হাতে হাত ধরি
কাঁধে কাঁধ করি
গাহিবো সকলে মিলে দলে দলে
‘আমার সোনার বাংলা আমি তোমায় ভালবাসি’
আমাদের স্বাধীনতা আছে, না থাক নিরাপত্তা
থাক শত শত হাজার হাজার গুম খুন চারিদিকে
আমাদের আছে প্রেমের বাহিনী
আছে ভালবাসা আরও রাশি রাশি।

  • দিনপন্জী

  • খোঁজ করুন