দেশপ্রেম এক ধরণের ক্যান্সার

দেশ প্রেম এক ধরণের ক্যান্সার / এরশাদ মজুমদার

তুমি শুনতে বা দেখতে পাচ্ছো কিনা
জানিনা মা
আমি বেঁচে আছি যেমনটি
রেখে গেছো তেমনটি
শুধু বদলেছে সময়
মাঝখানে অনেক গুলো বছর
পেরিয়ে গেছে। আমার মন ও বুদ্ধি
সেই কিশোরের মতোই আছে
আমি মানুষের কষ্ট দেখলেই
কেঁদে ফেলি
মানুষের সীমাহীন কষ্ট দেখে দেখে
আমি বয়সের পিলার গুলো
অতিক্রম করছি।
তোমরাতো মা
বণিকের পতাকাটা ফেলে দিয়ে
হাতে তুলে দিয়েছিলে চাঁদ তারা পতাকা
সেই পতাকা আমরা ফেলে দিয়েছি
হাতে নিয়েছি লাল সবুজের পতাকা
গাইছি ‘আমার সোনার বাংলা
আমি তোমায় ভালবাসি।
না মা ,যে সুখের কথা ভেবছিলাম
তা আজও আসেনি
বাংলার হাজারো
মা বোন ভাই
নিয়মিত খাদ্য পায়না
অসুখের অষুধ পায়না
পরণের বস্ত্র পায়না
শিশুরা বইয়ের বদলে
হাতে হাতুড়ী নেয়।
এমনটা হওয়ার কথা ছিলনা
নেতারা বলেছিল
আমাদের আর কোন
দু:খ থাকবেনা
আমাদের সবকিছু হবে
না মা কিছুই হয়নি
হওয়ার কোন নমুনাও দেখছিনা
আদৌ হবে কিনা
তাও কেউ জানেনা
তেতাল্লিশ বছরে শত শত লোক
লাল সবুজের পতাকা বেচে
রাজা হয়ে গেছে
নেতারাও দিনরাত
সকাল বিকাল পতাকা বেচে খায়
তাদের বউ গুলোর শরীর
এখন মাখনের মতন তুলতুলে
ওদের সাথে থাকে গণি হাজারীর
কতিপয় আমলার স্ত্রী।
তুমি দেখতে বা শুনতে পাচ্ছো কিনা
জানিনা মা
এখন আমি রাস্ট্রের ভয়ে থাকি
যে রাস্ট্র বলে
দেশকে বেশী ভালবাসা
এক ধরণের ক্যান্সার রোগ
এর কোন চিকিত্‍সা নেই
এ ধরণের দেশ প্রেমিকরা কুষ্ঠরোগী
এদের জনগণ থেকে
আলাদা বিচ্ছিন্ন করে রাখতে হয়
মাগো,আমি আজই বিচ্ছিন্ন আছি
একাকী একলা
আমার আসে পাশে
কোথাও কেউ নেই
সারাক্ষণ শুধু তোমার
কথা মনে পড়ে মাগো।

Advertisements