ওরা তোমাকে গুম করে দিতে চায়

ফোন আসছে স্কাইপে হচ্ছে ফেসবুক বলছে
হ্যালো, দেশ কেমন আছে
ভাই আপনারা সব নিরাপদে আছেনতো
মা কি খবর বলোতো
তোমরাওতো ফোন করতে পারো।
সারাদিন কাজে থাকি
কাজে মন বসেনা
শুধু তোমাদের কথা ভাবি
কি হলো দেশটার হঠাত্‍ করে
তোমরাতো একাত্তুর দেখেছো
আমিতো দেখিনি
শুনেছি তোমাদের কাছে।
চারিদিকে এত আগুন কেনো
চারিদিকে এত লাশ কেন
পুলিশ গুলি করছে কথায় কথায়
অচেনা লোকেরা লাঠি দিয়ে
পিটিয়ে মারছে দেশের মানুষ
নেতা বলছে মুক্তিযুদ্ধ শুরু হয়ে গেছে
স্বাধিনতা বিরোধীদের খতম করতে হবে
প্রধানমন্ত্রী বলছেন রাস্তায় নামুন
দেখি কার কত ক্ষমতা
আবার বলছেন একটি লাশ পড়লে
দশটি লাশ পড়বে।
কেন মা দেশটার এমন হলো
আমরাতো সবাই এক
আমরাইতো দেশ চালাই
তাহলে শত্রু কে আর মিত্র কে
স্বৈরাচারকেতো নব্বইতে বিদায় দিয়েছি
এখনও কি কোথাও স্বৈরাচার আছে মা।
দেশ ছেড়ে বিদেশে আছি পেটের দায়ে
যেখানেই যাই
সবাই জানতে চায় কি হয়েছে
এমন সবুজ শ্যামল দেশর
কে আগুন জ্বালাচ্ছে দিকে দিকে
এমন সোনার দেশে
ভাইয়ে ভাইয়ে এমন হানাহানি
তোমরা কি দেখেছো একাত্তুরে
জানি দেখোনি
তখনতো বলেছো
দেশ হানাদার মুক্ত হলেই
দেশে শান্তি আসবে
এখনতো সেন পাল মোঘল পাঠান কেউ নেই
তাহলে আবার কেন
এতো মারামারি
এতো হানাহানি
এতো রক্ত
এতো আগুন
পথে পথে এতো লাশ
এই পুলিশ
এই রেব
এই বিজিবি
এই আনসার
দেখলে কি মনে হয়
ওরা পাটগ্রাম দশ গ্রামের
রহিমুদ্দি করিমুদ্দির পোলা
ওরা কাকে রক্ষা করছে
কিসের জন্যে কথায় কথায়
মারছে গুলি মাথার খুলিতে
মারছে লাথি বুকে পিঠে
আমিতো এখানে বসেই শুনতে পাই
মাগো চিত্‍কার
মাগো ,আমি কি করবো বলো
কান্নায় বুক ভেংগে যাচ্ছে
কেন এমন হলো
আমাদের এমন সোনার দেশে
তুমি কি বুঝতে পারো মা
কেমন এমন হচ্ছে
কে লাগিয়ে দিলো ভাইয়ে ভাইয়ে
এমন খুনোখুনি
কেন রাস্তায় গড়াগড়ি
রক্তমাখা সবুজ পতাকার
ভালো করে ভেবে বলো মা
রাতের আঁধারে গোপনে গোপনে
মুখোশ পরে
সীমানা পেরিয়ে কেউ এসেছে কিনা
আমাদের আশে পাশ চোর ডাকতের
আনাগোনা বড় বেড়ে গেছে মা
ওরা তোমাকেই গুম করে দিতে চায় মা।