হুজুগে বাংগালী

আগুনে পুড়ছে মানুষ
পুড়ছে পথ ঘাট সহায় সম্বল
পুড়ছে আমার মন
পুড়ছে জনমন
পুড়ছে সবকিছু যখন তখন।
কেন হলো এমন
বলো বন্ধু,কেন এমন হলো
কি এমন ঘটছে আকাশে বাতাসে
কি এমন ঘটছে জলে স্থলে
নদনদী সিন্ধু সমুদ্রে
দেশ পুড়বে মাটি পুড়বে
মানুষ পুড়বে
শিশু পুড়বে
পুড়বে নারী পুরুষ বৃদ্ধ।
কে বলতে পারে
বাংলার এমন হাল
কেন হলো আজ
কে দায়ী কোথায় দায়ী
এখানে না সেখানে
দেশে না বিদেশে
একাত্তুরেতো এমন কথা ছিলনা
দুই হাজার তেরোতে এসে
কেন এমন হলো।
কে খেলছে
আমার মাতৃভুমি নিয়ে
কে খেতে চায় খাবলে
এমন সুন্দর শ্যামল দেশ
বর্গীরাতো চলে গেছে সে অনেক কাল
মোঘল পাঠান শক হান
সবাই গেছে চলে
শেষমেষ পাকিস্তানীরাও চলে গেছে
এখনতো শুধু আমরাই আমরা
তাহলে কেন জ্বলছে আগুন
টেকনাফ থেকে তেতুলিয়া
কে লাগায় আগুন এমন শ্যামল দেশে
বাইশ পরিবারও নেই
তোমরা ভাবতে
তারাই তোমাদের চুষে খায়
শুনেছি,দেখছি
এখন নাকি খায় তোমাদের চুষে চুষে
বাইশ হাজার বা বাইশ লাখে
যাদের খাবার কথা খাক তারা
তবুওতো আমরা আর আমরা
এখনওতো শত বা হাজার হয়নি
মাত্র দুই কুড়ি তিন বছর
পঞ্চাশও হয়নি
আর চলতে পারছোনা এক সাথে
ভাগ হয়ে গেলে মনে মনে অন্তরে অন্তরে
সত্যিই কি পারবেনা আর
তাইতো লোকে বলে
তোমরা নাকি হুজুগে বাংগালী
কথায় কথায় মারামারি কর
কথায় কথায় আগুন লাগাও
নিজেরই ঘরে
তারপর মাতম করো
বাঁচাও বাঁচাও
কে বাঁচাবে তোমাদের
কার কাছে করছো আবেদন
একাত্তুরে দাদারা এসেছে
এবার কি তাদেরই ডাকছো?
তখন সবাই বলবে
হুজুগে বাংগালীরা স্বাধীন থাকতে পারেনা
ওরাতো কখনই স্বাধীন ছিলনা
শাসিত হতেই ভালবাসে তারা।