ছায়ার আশায়

কথা ছিল একদিন চারা গাছ গুলো বৃক্ষ হবে

সেই বৃক্ষের ছায়ায় আমার দিন গুলো কাটবে

ছায়া কি তা যারা জানেনা তারা জানেনা

সারা জীবনই আমার ছায়ার আশা ছিল।

মাথার উপর স্নেহময় ছায়ার ভালবাসা থাকবে

ঘুম ঘুম অবস্থায়  সেই ছায়ায় কাটবে আমার দিন

সত্যিই শুধু ছায়ার আশাতেই আমি বেঁচে থাকি

খোদাতো নিজেই ছায়া সৃস্টি করেছেন আমার মতো

সবার জন্যে, যারা ছায়াকে ভালবাসে অন্তর দিয়ে।

 

Advertisements

শুধু তুমি আমায় জানলেনা।

তোমার চোখ আমি পড়তে পারি

পড়তে পারি তোমার ঠোটের চুপচাপ ভাষা

আমি জানি কিভাবে পড়তে হবে

তোমার অপ্রকাশিত মহাকাব্য।

এ জগতে আমার চেয়ে তোমাকে

আর কে বেশী জানে?

শুধু তুমি আমাকে জানলেনা

শুধু তুমি আমাকে জানলেনা

জানার কোন চেস্টা কোনদিন করলেনা।

 

মুখ আর মুখোশ

মুখ দেখে মনের অবস্থা কখনই বুঝা যায়না

যদি মুখটা মুখোশ হয়ে থাকে

কোনটা মুখ আর কোনটা মুখোশ কে বলতে পারে

আসলে সবইতো মুখোশ পরেই চলে।

তাইতো মানুষকে সহজে চেনা যায়না

এই সত্তুরেও আমি নিজেকে চিনতে পারিনি

এই সত্তুরেও আমি তাকে চিনতে পারিনি

জানিনা আর কখনও চেনা হবে কিনা।

এভাবেই চলছে কালের চাকা অচেনা অজানার ভিতর

কেউ কাউকে চিনেনা

চেনার কোন উপায় নেই

কোনটি মুখ আর কোনটি মুখোশ

সেটাইতো মানুষ জানেনা

কেন মুখোশ পরে মানুষ ঘুরে

মানুষ নিজেও জানেনা।

কস্টের আগুনে জ্বলে পুড়ে খাক আমি

কস্টের আগুনে জ্বলে পুড়ে আমি খাক হয়ে গেছি

তবুও অবিরাম হেটে চলেছি কস্টের মিছিলে

আরও কতকাল এই মিছিলে থাকবো জানিনা

নিজের কস্ট যা আছে যতটুকু আছে তার চেয়ে

হাজার গুণ বেশী বেশী জ্বলি সবার কস্টে।

চারিদিকে এত কস্ট কখন যে জমে গেছে

দিন যত যায়  কস্টের আগুন ততই বেশী হয়ে জ্বলে

আমি নিজের কস্টের  আগুন সইতে পারিনা

তবুও আগ বাড়িয়ে সবার কস্টের বোঝা

নিজের কাঁধে তুলে নিয়েছি কেন নিজেই বুঝিনা

আমার আর সবার কস্টের কথা জেনেও তুমি

চুপচাপ থাকো কেন, কেনইবা তুমি এতো নির্বিকার

তুমিইতো বলেছো মজলুমের ব্যথায় তুমি ব্যথিত হও

তবুও কেন  এত কস্টের আগুন জ্বালিয়েছো চারিদিকে।

দৈনিক আমার দেশ, ২রা ডিসেম্বর, ২০১১

পথের শেষ রেখায় দাঁড়িয়ে

আমি চলে গেলে তুমি কেমন রবে

এমন ভাবনার কোন মানে হয়না

এখানে প্রাণীরা আসে একা

আবার ফিরে যায় একা।

শুধু পথের মাঝেই দুজনের চেনা পরিচয়

তারপরে অবিরাম একসাথে চলা

আবার পথ ফুরিয়ে গেলে

একা একা ফিরে যাওয়া।

এমনি করেই চলছে

আসা যাওয়ার বিরামহীন খেলা

তারই মাঝে তুমি আর আমি

পথের শেষ রেখায় দাঁড়িয়ে ভাবছি

কে কখন পার হয়ে যাবো পথের শেষ রেখা।

এ রেখা পার হতেই হবে

কেউ আগে আর কেউ পরে

আমি বা তুমি, যে কেউ চলে যেতে পারি

আগে বা পরে নিয়ে তুমি অত বেশী ভেবোনা

চলো যাই, আমরা ফুরুত্‍ করে চলে যাই।

শুধু তুমি আর তোমার ভালবাসা

আমি যখন তুমি বলি তখন নিশ্চিত মনে রাখবে

আমি শুধু তোমার কথাই বলি, আমিতো তুমি ছাড়া

আর কোন তুমিকে চিনিনা জানিনা।

তুমিতো আমার অস্তিত্বের সাথে মিশে আছো নিশিদিন

তুমি ছাড়া আমি নাই এ কথা নিশ্চয়ই তুমি আমার চেয়ে

অনেক অনেক ভাল জান, আমি না থাকলেও তুমি আছো

তাই আমি যখনই তুমি বলি শুধু তোমার কথাই বলি।

তুমি মানে শুধুই তুমি, যে তুমি  এখানে সেখানে সবখানেই আছো

যেমন করে শুধু তুমিই থাকতে পারো।

তুমি কেমন করে ভাবতে পারো আমি অন্যকোন তুমিকে ভাববো

যে তুমি কোথাও নেই, কখনও কোথাও ছিলনা

তবে তুমি ভুলে যেওনা আমি শুধুই একটি মানুষ

যাকে তুমি দিয়েছো ভালবাসা প্রেম প্রীতি

তাইতো ভালবাসি  তোমার দেয়া ভালবাসা দিয়ে

জগতের সব লাইলী শিরী রজকিনী আর রাধাকে।

মানুষ ছাড়া এ জগতে কেউ জানেনা, কেউ শিখেনি

ভালবাসা কারে কয়।

মানুষের সৃস্টি কি কখনও ঠিক ছিল ?

যা বলছি আমি তা কোন প্রতিবাদ নয়

নয় কোন প্রতিরোধ বা  তোমার ক্ষমতার প্রতি কোন চ্যালেঞ্জ

তুমিইতো আমাকে ভাবাচ্ছো তেমন করে ভাবতে তোমার কথা ভাবতে

তাই ভাবছি, তুমি যা ভেবে মানুষকে বা আমাকে বানিয়েছো

সে ভাবনা সত্যি হয়নি। এমন করে ভাবছি বলে অধীনের দোষ নিওনা।

তোমার সাজানো বাগানে আমার পিতা তোমার কথা শুনেনি

আমার ভাইয়েরাইতো প্রথম খুন খারাবি শুরু করেছে স্বার্থপর হয়ে

সেই যে রক্তপাত শুরু হলো তা আজও থামেনি

ভালো ভাইটা প্রতিনিয়ত হত হচ্ছে মন্দ ভাইয়ের দ্বারা

যার কাছে যত জোর আছে সেই দাবী করছে সততা ও সত্যের

তোমার কিতাবের কথা কেউ শোনেনা। নিজেরাই আইন বানায়

সত্য আর ভালোকে নিয়মিত টুঁটি চেপে ধরার জন্যে।

তুমিই বলো এবার মানুষের সৃস্টি কি কখনও ঠিক ছিল?

  • দিনপন্জী

  • খোঁজ করুন