মরণ

মরন ব্যাটা নচ্ছার বেহায়া বেল্লিক একবিন্দু শরম নেই যার
লেপ্টে থাকে শরীরে আমার
কোটের পকেট, খাটপালং, সংসারের যাবতীয় খুঁটিনাটি
আসবাবপত্র, কাপড়চোপড় বেহায়ার মতো দখলে রাখে তার।
একবিন্দু সময়ের জ্ঞান নেই, নাশতার টেবিলে মনোরম সকালে
প্রিয়ার সাথে দিলখুলে দুটো কথা বলি যখন
তখন উঁকি দেয় ব্যাটা মহা আহাম্মকের মতো
অতো জ্বালা সয়না আর।
মধ্যরাতে অতি আদরে প্রিয়ার ঠোঁটে ঠোঁট রাখি যখন
আংগুল বিলি কাটে স্তনের বোটায়
পরমপুরুষ মাথা রাখে সৃষ্টির গহ্বরে
তখনি হারামজাদা উঁকি মারে
মুচকি হাসে চোখের ভিতর।
আরে বাবা, শরীরটাকে লাথি মেরে ফেলে দিয়ে নিয়ে যা আমাকে
ভাল করে জানি, কে না জানে এ জগতে আসবি একদিন তুই
পরকীয়া প্রেমের মতো
বাঁকাচোখি বেশ্যার মতো
চোখের একঠারে কলিজাটা করে দিবি ফালাফালা।
দিনরাত সময়ে অসময়ে বেশ্যারপুতের বেলেল্লাপনা লাগেনা ভালো
আড়ালে আবডালে এতো লুকোচুরি ক্যানরে ব্যাটা
বলে কয়ে বুক ফুলিয়ে বীরের মতো দর্পভরে আয়
সবাই দেখুক তোকে মহাবীর সত্যের বাহক।
দোকানের ঝাপটা ফেলে খেরোরখাতা বন্ধ করে একলাফে উঠে যাবো
তোর কাঁধের উপর
তখন তুই যাবি কই হারামজাদা
পাপের বোঝা কাঁধে নিয়ে ফেরি কর দোজখে দোজখে
প্রকাশ্যে হাঁক দিয়ে বল এই পাপীর কথা
কাঁপিয়ে দোজখের সকল দুয়ার
থরথরিয়ে কাঁপুক যতো দুয়ারি সর্দার।

৩।১২।০৩

মন্তব্য দিন

কোন মন্তব্য নেই এখনও

Comments RSS TrackBack Identifier URI

Leave a Reply

Fill in your details below or click an icon to log in:

WordPress.com Logo

You are commenting using your WordPress.com account. Log Out / পরিবর্তন )

Twitter picture

You are commenting using your Twitter account. Log Out / পরিবর্তন )

Facebook photo

You are commenting using your Facebook account. Log Out / পরিবর্তন )

Google+ photo

You are commenting using your Google+ account. Log Out / পরিবর্তন )

Connecting to %s