আমি কবরেই আছি

মাগো আমি কবরেই আছি

নিখোঁজ মনে করে আমায় কোথাও খুঁইজোনা

আমার খোঁজে তোমরা আর পেরেশান হয়োনা

এখানে এখন আমি নিরাপদ

কোথাও নেই রাজার পেয়াদা সাদা পোশাকে।

 

আমি ভাল আছি মা

কোথাও কোন ঝামেলা নেই

নেই কোন রাজার কোতোয়াল

 

আমি ভাল আছি, আছি নিরাপদ

আমি রোজার মাস

তোমরা ইফতার আর সেহরী করছো

শুনতে পাই বাসন কোসনের টুং টাং শব্দ

শুনতে পাই আজানের ধ্বনি

আর ক‘দিন পরেইতো তোমাদের ঈদ

আমি নেই বলে দু:খ করোনা

এই কবর খোদার মুলুক

 

এখানে খোদার কোতোয়ালেরা আমার খবর নেয়

এখানে আমি বেঁচে আছি

ভালভাবেই আছি বেঁচে।

 

 

Nothing is guaranteed

Nothing is guaranteed of our life

এ জীবনের কোন কিছুই নিশ্চিত নয়

মানুষ নিজেই জানেনা তার জীবনে কি ঘটতে পারে

কি ঘটতে যাচ্ছে। এমন সত্যটাও মানুষ ভাবতে পারেনা

হয়ত ভাবতে চায়না

মানুষ মনে করে সে যা ভাবছে তাই ঘটবে।

মানুষ মরবে সে জানে শতভাগ নিশ্চিত

তবুও মানুষের মনে থাকেনা তেমন সত্যের কথা।

কেন সে শতভাগ নিশ্চিত সে কথাও জানেনা

রাজা বাদশাহরা হয়ত জানেনা একদিন তারা থাকবেনা

জানলে হয়ত তাদের চলেনা

ফকির আর মিসকিনেরা ভাল করেই জানে তারা মরবে

না খেয়েই রাস্তার পাশেই মরে পড়ে থাকবে

রাজা মরবে যুদ্ধের ময়দানে

নয়ত মরবে অপঘাতে আততায়ীর হাতে

রাজার খেলা বন্দুক আর তলোয়ার নিয়ে

মিশকীন খেলা করে খালি থালা নিয়ে

তবুও রাজা ভাবেনা আগামী কাল কি হবে

এসব নাকি পারিষদরা ভাবে

Nothing is guaranteed of our life

We know it,but kings still do not know.

ফিরে আয় আলোর জগতে

ফিরে আয় আলোর জগতে  /এরশাদ মজুমদার

 

রাত বলো আর বিরাত বলো একা হলেই

তোমার কাছে যেতে মন আকুলি বিকুলি করে

মনে হয় আর দেরী কেন এইতো আসল সময়

তোমার আমার মিলনের চির দিনের মতো।

কি এমন টান আমার তোমার প্রতি নিশুতি কালে

একা হলেই কে যেন ডেকে বলে আয় আয়

এখন কি কাজ তোর ওখানে মায়াবী মাটির কোলে

কেমন করে ভুলে গেলি তুইতো মাটি নস।

ছিলি তুই আলোর মাঝে মহা আলো হয়ে

কেমন করে ভুলে গেলি পরম আলোর কথা

আয়রে আয় মাটির আঁধার ভেদ করে ফিরে আয়

এখানে মহা আলোর জগতে যেখানে মিলবি তোর

কালো মুক্ত চির আলো ভরা প্রাণের  আলয়ে।

 

এ গ্রহটা আর বেশীদিন বাঁচবেনা

এ গ্রহটা  আর বেশীদিন বাঁচবেনা/ এরশাদ মজুমদার

এ গ্রহটা  আর বেশীদিন বাঁচবেনা
গ্রহের সবকিছুই শেষ হয়ে যাবে
না থাকবে প্রাণ বা কোন প্রাণী
যে ভাবে সব কিছু ঠিকঠাক চলার কথা ছিল
তা চলছেনা।
মানুষই নাকি এ গ্রহের ধ্বংসের প্রধান কান্ডারী
মানুষের যেমন হওয়ার কথা ছিল তেমন হয়নি
মানুষের সকল গুণ রহিত হতে চলেছে
গ্রহটির মৃত্যু ঘনিয়ে আসছে ধেয়ে
মানুষ যদি মানুষ না থাকে
তাহলে এ গ্রহের আর কি প্রয়োজন?
বস্তুজ্ঞানের সাধকেরা বলছে
গ্রহের জলবায়ু ধ্বংস হলেই সব ধ্বংস হবে
কবি বলছে মানুষ অজ্ঞানের পুজারী হয়ে গেছে
তাই গ্রহের আর কি প্রয়োজন।
মানুষ জ্ঞানের প্রদীপ নিভিয়ে দিয়ে
অন্ধকারের সাধনা করছে।
আমার প্রভু বলছে, এ মানুষের আর প্রয়োজন নেই
গ্রহটি অন্ধকারে আস্তে আস্তে ঢেকে যাচ্ছে

আমি আসছি ফিরে

আমি আসবো ফিরে
আমি আসছি ফিরে
তুমি যেভাবে চেয়েছো সেভাবেই।
আর কোথায় যাবো
আর কি আছে ঠিকানা
তুমি ছাড়া আমার
আমি আসছি ফিরে
তুমি যেভাবে চেয়েছো সেভাবেই।
আর কোন পথ জানা নেই আমার
তোমার জানানো পথ ছাড়া
তুমিইতো বলেছো
এ পথই সব চেয়ে সরল পথ।
আমি জানি এখানে কোন সরল পথ নেই
মানুষ গুলোইতো সরল নয়
এখানে বাঁকা পথে চলে
সরল পথের ভাব দেখায়
আসলে তারা সরল পথই চিনেনা।
তবুও আমি আসছি তোমার দেখানো
সরল পথে
আমার ফিরার পথটাকে
আরও সহজ করে দাও
আমি যেন চোখের পলকে
ফিরে আসতে পারি তোমার কাছে।
পথটাকে আমার ফুলময় সংগীতময় করো
আমি যে ফুল আর সংগীত ভালবাসি
জানি তুমিও বাস।

পরাধীনতাই আমার স্বাধীনতা

পরাধীনতাই আমার স্বাধীনতা / এরশাদ মজুমদার

অনেক অভিযোগ আছে তোমার আমার বিরুদ্ধে
আজও আমি রয়ে গেছি অভিযুক্ত তোমার দরবারে
ঘর বলো সংসার বলো আমি কিছুই পারিনি
আমি জানি আমি মহা অযোগ্য এ জগত সংসারে।
তবুও আছি বেঁচে সংসার নামক বন্দী কারাগারে
কেমন হলে ভাল সংসার হয় তা আজও জানিনা
সংসার সুখের হয় রমণীর গুণে তাই আমি আছি গুণহীন
আমি খুবই সুখে আছি বোবা কালা বন্দী জীবন।
কেন যেন মনে হয় বন্দীত্বই আমার স্বাধীনতা
পরাধীন থাকলেই আমি স্বাধীন থাকি মনের ভিতর
আজ আমি তাই পরাধীন সবখানে স্বাধীন দেশে
আমি অযোগ্য অধম বলেই পরাধীন হয়ে থাকি।
সমাজ রাষ্ট্র স্বদেশ ভুমি সবাই বলে চুপ করে থাক
খাবার দাবার পোষাক আষাক সবই আছে তোর
শুধু মুখটা তোর বন্ধ রাখ রাষ্ট্রের স্বাধীনতার লাগি
ভাল করে বুঝে নে স্বাধীনতা কাকে বলে এদেশে এখন
আমাকে সবাই ভাল করে দেখে নাও কেমন স্বাধীন আছি।

আমিইতো বাংলাদেশ

আমিইতো বাংলাদেশ  / এরশাদ মজুমদার

বাংলাদেশের হৃদয় হতে হঠাত্‍ দেখি
কে যেন দাঁড়িয়ে আছে
গুলশান দুই গোল চক্করে
লাল সবুজ পতাকা জড়িয়ে
মনে হলো মানুষ।
ট্রাফিক পুলিশ এলো
গুলশান থানার পুলিশ বহর এলো
কিছুতেই বুঝা যাচ্ছেনা ওটা কি
মানুষ না মুর্তি
এতক্ষনে সাংবাদিকরা এসে গেছেন
জানা গেলো সন্ধ্যা নাগাদ দিল্লী থেকে
বিদেশী সাংবাদিকরা এসে যাবে
চার্টার্ড প্লেনে
গুলশান এক পর্যন্ত লোকে লোকারাণ্য
তারপরে হাতিরঝিল,তেজগাঁ সোনাগাঁ
শোনা গেলো রাতের দিকে
হেফাজত মার্কা অপারেশন চালানো হবে।

মানুষ হলে গুলি করা হবে
মুর্তি হলে রাতের মাঝেই সরিয়ে ফেলা হবে

এতো লোক কোত্থকে এলো
না খালেদা জিয়ার কোন চাল
তিনি এখন কোথায়
গোয়েন্দাদের বলা হলো তদন্ত করতে

সন্ধ্যা নেমে এলে
দিল্লী থেকে বিদেশী সাংবাদিকরা
বিমান বন্দরে পৌঁছে গেছে
ঘটনাস্থলে তারা হেলিকপ্টারে এলেন
তারা আকাশ থেকে জন সমুদ্র দেখলেন।
সিদ্ধান্ত হলো গুলি করা হবে
রাত আটটা পাঁচ মিনিটে গুলি করা হলো
সাউন্ডলেস রাইফেল থেকে কয়েক রাউন্ড
লাল সবুজের পতাকাটি রক্তে লাল হয়ে গেলো
কিন্তু মাটিতে গড়িয়ে পড়লোনা মানুষ বা মুর্তি
গোলচক্কর পুলিশ বেস্টনী দিয়ে ঘিরে রখেছে

কেউই কাছাকাছি যেতে সাহস করছেনা।
পতাকা মোড়ানো অদেখা জিনিসটি নিশ্চই মানুষ
না হয় রক্তাক্ত হবে কেন
পুলিশ ভয়ে ভয়ে এগিয়ে পতাকা ধরতেই
আওয়াজ এলো পতাকাটা ছিঁড়ে ফেলোনা
রক্তে দেশটাতো  দেশটাতো এমনিতেই রক্তে ভেজা
আমাকে তোমরা মারতে পারবেনা
আমি না মানুষ,না মুর্তি
তোমরা আমায় দেখতে পাবেনা
পতাকাটা আমার অলৌকিক দেহে মিশে গেছে
আমিইতো আসল বাংলাদেশ ।

আমাকে তোমরা ধরতে বা ছুঁতে পারবেনা
কোন গুলি বা বোমায় মৃত্যু হবেনা
প্রভুর ইচ্ছায় আমি আজ এখানে দাঁড়িয়ে আছি
স্বাধীন পতাকা শরীরে জড়িয়ে
যাকে তোমরা পবিত্র বলে সালাম করো
আজ  কেন করছো ভয়।

এই পতাকাই আমার প্রতীক

আরেকবার পতাকায় গুলি করো
দেখবে, শুধু রক্ত ঝরবে
সবুজবাংলা লালে লাল হবে

আমার কোন পতন নেই
আমি মানেই বাংলাদেশের কোটি মানুষ
আমি মানেই বাংলার মাটি।

Follow

Get every new post delivered to your Inbox.

Join 298 other followers